Skip Navigation

National Geographic Society This program is distributed in the U.S. and Canada by National Geographic and EHD. [learn more]

Multilingual Illustrated DVD [Tutorial]

The Biology of Prenatal Development




জন্মপূর্ব ঘটনাদির বিকাশ-সংক্রান্ত জীববিদ্যা

.বাং [Bengali]


 
Download English PDF  Download Spanish PDF  Download French PDF  What is PDF?
 

The Fetal Period (8 Weeks through Birth)

Chapter 37   9 Weeks: Swallows, Sighs, and Stretches

গর্ভস্থ সন্তান-সংক্রান্ত কাল জন্ম অব্দি চলে.

৯ সপ্তাহে, বুড়ো আঙুল চোষা শুরু হয়ে যায় এবং গর্ভস্থ সন্তান এম্নিওটিক তরল গিলতে পারে.

গর্ভস্থ সন্তান জিনিস ধরতেও পারে, মাথা সামনে পিছনে নাড়াতে পারে, চোয়াল খোলা বন্ধ করতে পারে, জিব নাড়াতে পারে, দীর্ঘশ্বাস ফেলতে পারে ও শরীর টান করতে পারে.

মুখের, হাতের পাতার, পায়ের তলার স্নায়ুর সংকেতগ্রহণকারী হালকা স্পর্শ অনুভব করতে পারে.

"পায়ের তলায় একটি হালকা স্পর্শে," গর্ভস্থ সন্তান নিতম্ব আর হাঁটু বেঁকিয়ে ফেলবে এবং পায়ের আঙুল মুড়ে নেবে.

চোখের পাতা এখন সম্পূর্ণভাবে বন্ধ.

ল্যারিঙ্সে, কন্ঠসম্বন্ধীয় সন্ধিবন্ধনীর আবির্ভাব স্বরতন্ত্রীর বিকাশের ইঙ্গিত দেয়.

নারীর গর্ভস্থ সন্তানে, জরায়ু চেনা যায় এবং অপরিণত প্রজননসংক্রান্ত কোষ, যাকে উগোনিয়া বলা হয়, ডিম্বোকোষের ভেতর অবিকল অনুকৃতি তৈরি করছে.

বাইরের যৌন প্রজনন-সংক্রান্ত অঙ্গ নারী বা পুরুষ হিসেবে আলাদা হতে শুরু করে.

Chapter 38   10 Weeks: Rolls Eyes and Yawns, Fingernails & Fingerprints

৯ এবং ১০ সপ্তাহের মধ্যে অতি বিকাশের দরুণ শরীরের ওজন ৭৫%-এর বেশি বেড়ে যায়.

১০ সপ্তাহে, চোখের ওপরের পাতার উদ্দীপনার দরুণ চোখ নিচের দিকের ঘুর্ণিত হয়.

গর্ভস্থ সন্তান হাই তোলে আর ঘন ঘন মুখ খোলা বন্ধ করে.

অধিকাংশ গর্ভস্থ সন্তান ডান হাতের বুড়ো আঙুল চোষে.

নাড়ীর ভেতর থেকে অন্ত্রের অংশ পেটের গহ্বরে ফিরতে শুরু করেছে.

অধিকাংশ হাড়ে অসিফিকেশন চলছে.

হাতের আর পায়ের আঙুলের নখ তৈরি হওয়া শুরু হয়েছে.

হাতের আঙুলের অনন্য ছাপ গর্ভাধানের ১০ সপ্তাহের পর আবির্ভূত হয়. এই নকশা সারা জীবন ধরে পরিচয়ের কাজে ব্যবহার করা যাবে.

Chapter 39   11 Weeks: Absorbs Glucose and Water

১১ সপ্তাহে নাক এবং ঠোঁট সম্পূর্ণভাবে তৈরি হয়ে যায়. অন্য প্রত্যেকটি অঙ্গের মত, এদের আকৃতি মানুষের জীবন চক্রের বিভিন্ন অধ্যায়ে বদলে যাবে.

গর্ভস্থ সন্তান যে গ্লুকোজ আর জল গিলে নেয় তা অন্ত্র শুষে নিতে শুরু করে.

যদিও গর্ভাধানের সময়েই লিঙ্গ নির্ধারিত হয়ে গেছে, বাইরের যৌন প্রজননসংক্রান্ত অঙ্গ এখন পুরুষ বা নারী হিসেবে আলাদা করা যায়.

Chapter 40   3 to 4 Months (12 to 16 Weeks): Taste Buds, Jaw Motion, Rooting Reflex, Quickening

১১ আর ১২ সপ্তাহের মধ্যে, গর্ভস্থ সন্তানের ওজন প্রায় ৬০% বেড়ে যায়.

বারো সপ্তাহ গর্ভাবস্থার পয়লা তৃতীয়ার্ধ, বা ট্রাইমেস্টার চিহ্নিত করে.

নির্দিষ্ট স্বাদমুকুল মুখের ভেতরটা আবৃত করে.
জন্মের সময়, স্বাদমুকুল একমাত্র জিব এবং মুখের টাকরায় থাকে.

মলত্যাগ ১২ সপ্তাহে শুরু হয়ে যায় এবং প্রায় ৬ সপ্তাহ চলতে থাকে.

বস্তুটি প্রথমে গর্ভস্থ সন্তান এবং তারপর সদ্যজাত মলাশয় অর্থাৼ মেকোনিয়ম, ত্যাগ করে. ওটি হজমসংক্রান্ত উ ৼসেচক প্রোটিন এবং পাচনতন্ত্রের ফেলে দেওয়া মৃত কোষ দিয়ে নির্মীত.

১২ সপ্তাহে, হাতের দৈর্ঘ্য শরীরের আকারের সাথে সামঞ্জস্যপূর্ণ হয়ে যায়. পা অবশ্য চূড়ান্ত অনুপাত অর্জন করতে আরও সময় নেয়.

শরীরের পিছন এবং মাথার ওপরটা ছাড়া, গর্ভস্থ সন্তানের সমস্ত শরীর এখন হালকা ছোঁয়ায় সাড়া দেয়.

লিঙ্গ-নির্ভর বিকাশ-সংক্রান্ত পার্থক্য প্রথম দেখা যায়. যেমন, গর্ভস্থ মেয়ে সন্তান পুরুষের তুলনায় অনেক বেশি ঘন ঘন চোয়াল নাড়ে.

আগের গুটিয়ে যাওয়ার পরিবর্তে এখন, মুখের কাছে কোন রকম নড়াচড়া হলে সে দিকে মুখ ঘুড়ে যায় এবং মুখ খুলে যায়. এই সাড়া দেওয়াকে 'রুটিং রিফ্লেক্স' বলা হয় এবং জন্মের পরেও এটা থেকে যায়, যার সাহায্যে সদ্যজাত শিশু মায়ের কাছে দুধ খাওয়ার সময় মায়ের স্তন্যবৃন্ত খুঁজে পায়.

মুখ পরিণত হতে শুরু করে যেই মেদ জমা হয়ে গাল ভর্তি করতে শুরু করে এবং দাঁত তৈরি হতে শুরু করে.

১৫ সপ্তাহে, রক্ত-প্রস্তুতকারী স্টেম সেল আবির্ভূত হয় এবং হাড়ের মজ্জায় বৃদ্ধি পেতে থাকে. অধিকাংশ রক্ত কোষ এখানেই নির্মীত হবে.

যদিও ৬-সপ্তাহের ভ্রূণ নড়াচড়া শুরু করে দেয়, কিন্তু একজন গর্ভবতী মহিলা গর্ভস্থ সন্তানের নড়াচড়া প্রথম অনুভব করেন ১৪ থেকে ১৮ সপ্তাহের মধ্যে. চিরাচরিত ভাষায় একে প্রাণলাভ করা বলে.

Chapter 41   4 to 5 Months (16 to 20 Weeks): Stress Response, Vernix Caseosa, Circadian Rhythms

১৬ সপ্তাহে, গর্ভস্থ সন্তানের পেটের ভেতরে সূঁচ ঢোকানোর ফলে একটি হর্মোনের উত্তেজনা সংক্রান্ত সাড়া পাওয়া যায় এবং রক্তপ্রবাহে নরঅ৻াড্রেন্যালিন, বা নরএপিনেফ্রিন ছাড়ে. আক্রমণাত্মক প্রক্রিয়ার ক্ষেত্রে সদ্যজাত এবং পূর্ণবয়স্কের প্রতিক্রিয়া একই হয়.

শ্বসনতন্ত্রে, শ্বাসনালী বৃক্ষ এখন প্রায় সম্পূর্ণ.

একটি সুরক্ষাসূচক সাদা বস্তু, যাকে ভেরনিক্স ক্যাসিওসা বলে, এবার গর্ভস্ত সন্তানকে ঢেকে ফেলে. ভেরনিক্স অ৻াম্নিওটিক তরলের জ্বলুনি থেকে চামড়াকে রক্ষা করে.

১৯ সপ্তাহ থেকে গর্ভস্থ সন্তানের নড়াচড়া, শ্বাসপ্রশ্বাস, এবং হৃৼস্পন্দন নিত্য আবর্তন মেনে চলতে শুরু করে যাকে বলে সার্কাডিয়ান রিদ্‌ম.

Chapter 42   5 to 6 Months (20 to 24 Weeks): Responds to Sound; Hair and Skin; Age of Viability

২০ সপ্তাহের মধ্যে শ্রবণের অঙ্গ, কক্লিয়া, সম্পূর্ণ বিকশিত আভ্যন্তরীণ কানের ভেতর পূর্ণাঙ্গ আকার লাভ করে. এখন থেকে, গর্ভস্থ সন্তানের সাড়া দেওয়ার শব্দের পরিধি বেড়ে গেল.

মাথার চামড়ায় চুল হতে শুরু করেছে.

চামড়ার সমস্ত স্তর এবং অঙ্গবিন্যাস উপস্থিত আছে, এর মধ্যে গ্রন্থিকোষ ও গ্রন্থিও আছে.

গর্ভাধানের ২১ থেকে ২২ সপ্তাহ পর, ফুসফুস শ্বাসপ্রশ্বাসের জন্য প্রয়োজনীয় খানিকটা শক্তি অর্জন করে. একে কার্যকরতার বয়স বলা হয় কারণ কিছু গর্ভস্থ সন্তানের পক্ষে জরায়ুর বাইরে বাঁচা সম্ভব হয়. চিকিৼসা ব্যবস্থার দীর্ঘ অগ্রগতির দরুণ সময়ের পূর্বে জাত শিশুদের বাঁচনো সম্ভব হচ্ছে.

Chapter 43   6 to 7 Months (24 to 28 Weeks): Blink-Startle; Pupils Respond to Light; Smell and Taste

২৪ সপ্তাহে চোখের পাতা আবার খোলে এবং গর্ভস্থ সন্তানের চোখ পিটপিট- বিস্ফারিত প্রতিক্রিয়া হয়. হঠাৼ কোন জোড়ালো শব্দে এই ধরণের প্রতিক্রিয়া স্বভাবতঃই আগে গর্ভস্থ মেয়ে সন্তানের হয়.

অনেক পরীক্ষক জানিয়েছেন জোড়ালো শব্দের দরুণ গর্ভস্থ সন্তানের স্বাস্থ্যহানি হতে পারে. তক্ষুণি হতে পারে অবিরাম বর্ধিত হৃৼস্পন্দন, গর্ভস্থ সন্তানের অত্যধিক গেলা এবং আচরণে আকস্মিক পরিবর্তন. দীর্ঘ-মেয়াদী সম্ভাব্য ফলাফলের মধ্যে আছে শ্রবণশক্তি হারানো.

গর্ভস্থ সন্তানের শ্বাসপ্রশ্বাসের গতি বেড়ে গিয়ে প্রতি মিনিটে ৪৪বার শ্বাস গ্রহণ-বর্জন হতে পারে.

গর্ভাবস্থার তৃতীয় তিন মাসের সময়, গর্ভস্থ সন্তান দ্বারা ব্যবহৃত শক্তির ৫০% মস্তিষ্কের দ্রুত বিকাশ ভোগ করে. মস্তিষ্কের ওজন ৪০০ থেকে ৫০০% বাড়ে.

২৬ সপ্তাহে চোখ কান্না তৈরি করে.

২৭ সপ্তাহেই চোখের মণি আলোতে সাড়া দেয়. এই প্রতিক্রিয়াই সারা জীবন ধরে চোখের মণিতে কতটা আলো যাবে তা নির্ধারণ করে.

শোঁকার ইন্দ্রিয় কাজ করার জন্যে প্রয়োজনীয় সব উপাদান সক্রিয়. সময়ের পূর্বে জাত শিশুকে পরীক্ষা করে জানা গেছে গর্ভাধানের ২৬ সপ্তাহ পরই দুর্গন্ধ টের পেয়ে যায়.

এম্নিওটিক তরলে মিষ্টি জিনিস রাখলে গিলে নেওয়ার গতি বৃদ্ধি পায়. অন্যদিকে, তেতো বস্তু রাখা হলে গেলা কমে যায়. মুখের অভিব্যক্তির পরিবর্তনও এর সাথে ঘটে.

হাঁটার সময় যেমন পা ফেলা হয় সেই রকম নড়াচড়ার মাধ্যমে গর্ভস্থ শিশু ডিগবাজি খায়.

গর্ভস্থ সন্তানের কুঁচকানো ভাব কমে যায় যেহেতু চামড়ার তলায় অতিরিক্ত মেদ জমে. শরীরের তাপমাত্রা বজায় রাখার ক্ষেত্রে এবং জন্মের পরে শক্তি মজুদ করার ক্ষেত্রে মেদ একটি গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা পালন করে.

Chapter 44   7 to 8 Months (28 to 32 Weeks): Sound Discrimination, Behavioral States

২৮ সপ্তাহে গর্ভস্থ সন্তান উচ্চ এবং নিম্ন পর্দার শব্দের ফারাক বুঝতে পারে.

৩০ সপ্তাহে, শ্বাসপ্রশ্বাস সংক্রান্ত নড়াচড়া অনেক বেশি হয় এবং একটি সাধারণ গর্ভস্থ সন্তানের ক্ষেত্রে ৩০ থেকে ৪০% সময়ে ঘটে থাকে.

গর্ভাবস্থার শেষ ৪ মাসে, বিশ্রামের ফাঁকে ফাঁকে গর্ভস্থ সন্তানের সমন্বিত ক্রিয়াকলাপ প্রকাশ পায়. এই ধরণের আচরণ কেন্দ্রীয় স্নায়ুতন্ত্রের ক্রম-বর্ধমান জটিলতার প্রতিফলন.

Chapter 45   8 to 9 Months (32 to 36 Weeks): Alveoli Formation, Firm Grasp, Taste Preferences

মোটামুটি ৩২ সপ্তাহে, সঠিক অ৻ালভিওলি, বা বায়ু "পকেট" কোষ, ফুসফুসে গড়ে উঠতে শুরু করে. এগুলো জন্মের পর ৮ বছর অব্দি তৈরি হতে থাকবে.

৩৫ সপ্তাহে গর্ভস্থ সন্তান হাত দিয়ে জোড়ালোভাবে ধরতে পারে.

গর্ভস্থ সন্তানের বিভিন্ন জিনিসের সাথে পরিচিত হওয়া থেকে জন্মের পরে তার পছন্দের বিষয়গুলি প্রভাবিত হয়. যেমন, যে গর্ভস্থ সন্তানের মা মৌরি খেয়েছেন, যা কিনা যষ্ঠিমধুর স্বাদের কারণ, জন্মের পর ঐ সন্তান দেখা যায় মৌরি পছন্দ করে. যে সদ্যজাত শিশু গর্ভস্থ অবস্থায় মৌরির সাথে পরিচিত হয়নি, সে অপছন্দ করবে.

Chapter 46   9 Months to Birth (36 Weeks through Birth)

গর্ভস্থ সন্তান ইস্ট্রোজেন নামে একটি হর্মোন প্রচুর পরিমাণে ছেড়ে প্রসব শুরু করায় এবং গর্ভস্থ সন্তান থেকে সদ্যজাততে পরিণত হওয়া শুরু হয়.

প্রসবকালে জরায়ুর প্রবলভাবে সঙ্কোচন হয়, যার ফলে সন্তান জন্মগ্রহণ করে.

গর্ভাধান থেকে জন্ম এবং তার পরে, মানুষের বিকাশ বেগবান, অবিরাম এবং জটিল. এই মোহময় প্রক্রিয়া সম্পর্কে নতুন আবিষ্কার আরো বেশি করে দেখাচ্ছে যে গর্ভস্থ অবস্থায় সন্তানের বিকাশ সারা জীবন ধরে স্বাস্থ্যকে প্রভাবিত করে.

যত মানুষের প্রাথমিক বিকাশ সম্পর্কে আমাদের জ্ঞানোপলব্ধী হবে, তত স্বাস্থ্য উন্নয়নে আমাদের ক্ষমতা বৃদ্ধি পাবে - জন্মের আগে এবং পরে দুইই.


Add a Comment

Your Name: Log In 3rd-party login: Facebook     Google     Yahoo

Comment: